“উন্নয়নের রোল মডেল হচ্ছে কাশীপুর”

0
8

শীতলক্ষা রিপোর্ট : নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের মাঝে চেয়ারম্যান এম সাইফ উল্লাহ বাদলের কাশীপুর ইউনিয়ন হতে যাচ্ছে উন্নয়নের রোল মডেল। এই ইউনিয়নে বিগত বছরগুলিতে যে উন্নয়ন হয়েছে সেটা হয়েছে মজবুত ও টেকসই। কিছু ব্যাতিক্রম ছাড়া কাশীপুর ইউনিয়নের সব কয়টি ওয়ার্ডে রাস্তাঘাট এবং ড্রেনেজ ব্যাবস্থার ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। তাই উন্নয়ন নিয়ে ইউনিয়নবাসী বেশ সন্তোষ প্রকাশ করছেন।
এদিকে এম সাইফ উল্লাহ বাদল একই সঙ্গে ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং কাশীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। তিনি চেয়ারম্যান হওয়ার আগে থেকেই এলাকার উন্নয়নে ভূমিকা রাখা শুরু করেছিলেন। তবে তিনি এবার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে এই উন্নয়ন আরো গতি লাভ করে। এরই মাঝে বদলে গেছে কাশীপুর ইউনিয়ন এলাকার চেহারা। বিগত বছরগুলিতে নারায়ণগঞ্জ জেলার ইউনিয়ন পরিষদগুলির মাঝে সবচেয়ে বেশি উন্নয়ন হয় এই সাইফ উল্লাহ বাদলের কাশীপুর ইউনিয়নে। গত কয়েকদিন সরেজমিন ইউনিয়টি পরিদর্শন করে দেখা গেছে এমন কোনো গ্রাম বা পাড়া মহল্লা নেই যেখানে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগে নাই। বিভিন্ন গ্রামের মানুষের সঙ্গে এ বিষয়ে আলাপকালে তারা বলেন, আর যাই হোক উন্নয়ন প্রশ্নে আপোষহীন সাইফ উল্লাহ বাদল। যারা বিএনপি করেন বা তাকে পছন্দ করেন না তারাও তার এই ব্যাপক উন্নয়ন করার বিষয়টি স্বীকার করেন। এ বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে বাংলাবাজার এলাকার জাহাঙ্গীর আলম বলেন, বাদল চেয়ারম্যান এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। তিনি রাস্তাগুলো পাকা করছেন বেশ মজবুত এবং টেকসই করে। তাই আমরা মনে করি তিনি যখন থাকবেন না তখনও কাশীপুরের মানুষ তাকে স্মরন করবে কেবল মাত্র তার এই উন্নয়নের কারণে। এলাকায় এখন আর কোনো কাঁচা রাস্তা নেই বলে তিনি দাবি করেন। তিনি বলেন কোনো দলের রাজনীতির সঙ্গেই তিনি জরিত নন এমন কি তিনি আওয়ামী লীগের সমর্থকও নন। কিন্তু সত্য কথাতো বলতেই হবে। বাদল চেয়ারম্যান যে উন্নয়ন করে রেখে যাচ্ছেন এটা তিনি আছেন বলেই সম্ভব হচ্ছে। তিনি ছাড়া অন্য কারো পক্ষেই এটা সম্ভব হতো না। কারণ সবাই জানে সাইফ উল্লাহ বাদলকে সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান খুবই সন্মানের চোখে দেখেন। তাই তিনি যখন কোনো উন্নয়ন বরাদ্ধ চান তাহলে সেটা শামীম ওসমান না করতে পারেন না। তাই সাইফ উল্লাহ বাদল আমাদের চেয়ারম্যান হওয়ায় আমরা নিজেদেরকে সৌভাগ্যবান মনে করি।
অপরদিকে কাশীপুর ইউনিয়নের হাটখোলা এলাকার জামাল উদ্দিন বলেন, সাইফ উল্লাহ বাদল চেয়ারম্যান হওয়ায় যে উন্নয়ন সম্ভব হচ্ছে তাতে অন্য কেউ হলে এটা মোটেও সম্ভব হতো না। তাই তিনি চেয়ারম্যান হওয়ায় আমাদের জন্য সৌভাগ্যের বিষয় বলে আমরা মনে করি। তিনি এতো উন্নয়ন করছেন যে এখানে তিনি ছাড়া অন্য কেউ চেয়ারম্যান হলে এটা সম্ভব হতো না। সাইফ উল্লাহ বাদলের পক্ষে এটা এ কারণে সম্ভব হচ্ছে যে তিনি আওয়ামী লীগের একজন খুবই গুরুত্বপূর্ণ নেতা এবং বর্তমানে রাস্ট্র ক্ষমতায় আওয়ামী লীগ। তাই তার পক্ষে গোটা কাশীপুর ইউনিয়ন জুড়ে ব্যাপক উন্নয়ন করা সম্ভব হচ্ছে। আমরা তার সাফল্য কামনা করছি। মূলত এভাবেই আরো অনেকে কাশীপুরের মানুষ তাদের এলাকায় ব্যাপক উন্নয়নের কথা স্বীকার করেন।
কাশীপুর ইউনিয়ন পরিষদের সব কয়টি ওয়ার্ডে ব্যাপক উন্নয়ন নিয়ে দৈনিক শীতলক্ষায় যে রিপোর্ট প্রকাশ হয়েছে এই রিপোর্ট পড়ে প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করেছেন চেয়ারম্যান এই সাইফ উল্লাহ বাদল। তিনি বলেন, পত্রিকায় কাশীপুরের জনগনের বক্তব্য নিয়ে যে রিপোর্টটি প্রকাশ করা হয়েছে। আমি তাতে শীতলক্ষা কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। তবে আমি বলতে চাই, যদিও রিপোর্টে এই উন্নয়নের পেছনে সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের অবদানের কথা উল্লেখ করেছেন এলাকাবাসী। এ বিষয়ে আমার বক্তব্য হলো গোটা নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে ব্যাপক উন্নয়ন করে চলেছেন সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। আপনারা ফতুল্লার সব কয়টি ইউনিয়ন পরিদর্শন করলে দেখতে পাবেন মাননীয় সংসদ সদস্য শামীম ওসমান সব কয়টি ইউনিয়নেই প্রায় নব্বই শতাংশ রাস্তাঘাটের উন্নয়ন সম্পন্ন করেছে। আর বাকী দশ ভাগ উন্নয়নও আগামী এক বছরের মধ্যে সম্পন্ন হবে ইনশাল্লাহ। তাই আমি ফতুল্লাবাসীর পক্ষ থেকে সংসদ সদস্য শামীম ওসমানকে বিশেষ ভাবে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here